রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন

ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চের ধাক্কায় ট্রলারডুবির পাঁচদিন পর মা-মেয়েসহ ৪ জনের লাশ উদ্ধার

সংবাদ নারায়ণগঞ্জ:- ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চের ধাক্কায় ট্রলারডুবির পাঁচদিন পর মা-মেয়েসহ নিখোঁজ চারজনের লাশ উদ্ধার করেছে নৌ-পুলিশ। তবে এ ঘটনায় এখনো ছয়জন নিখোঁজ রয়েছেন।

(৯ জানুয়ারি) রোববার সকালে নদীর ধর্মগঞ্জ এলাকা থেকে চারটি লাশ উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন।

তিনি বলেন, ট্রলারডুবির স্থান থেকে কিছুটা দূরে চারটি লাশ ভাসতে দেখে আমাদের খবর দেন স্থানীয় লোকজন। পরে আমরা গিয়ে উদ্ধার করি। লাশ শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

এদিকে, ট্রলারডুবির ঘটনা তদন্তে সাত সদস্যের কমিটি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। ১০ কার্যদিবসের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এরই মধ্যে এমভি ফারহান-৬ লঞ্চের মাস্টার কামরুল হাসান, চালক জসিমউদ্দিন ভূঁইয়া ও সুকানি জসিম মোল্লাকে আসামি করে ফতুল্লা থানায় মামলা করেছেন বিআইডব্লিউটিএর উপপরিচালক (নৌ নিরাপত্তা বিভাগ) বাবু লাল বৈদ্য। তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া লঞ্চটিও জব্দ করা হয়েছে।

৫ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ফতুল্লায় ধলেশ্বরী নদীতে লঞ্চের ধাক্কায় ট্রলার ডুবে ১০ জন নিখোঁজ হন। অন্তত ৩০ যাত্রী বহনকারী ট্রলারটি এমভি ফারহান-৬ নামের লঞ্চের ধাক্কায় নদীতে ডুবে যায়। বেশির ভাগ যাত্রী সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও ওই ১০ জনকে পাওয়া যায়নি। সেদিন থেকেই তাদের খোঁজ পেতে বুড়িগঙ্গার তীরে অপেক্ষায় রয়েছেন স্বজনরা।

ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক তরিকুল ইসলাম জানান, কুয়াশার মধ্যে বেপরোয়া গতিতে লঞ্চটি চলছিল বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে। এ কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিউজটি শেয়ার করুন...


© 2022 Sangbadnarayanganj.com - All rights reserved
Design & Developed by POPULAR HOST BD