শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ০৩:৫৩ পূর্বাহ্ন

ফতুল্লায় মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা: বাবা গ্রেফতার

সংবাদ নারায়ণগঞ্জ:- নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার পাগলা নিজের কিশোরী মেয়েকে (১৫) ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে মোঃ রুবেল (৩৭) নামের এক লম্পটকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।২

(১৭ আগস্ট) রোববার ভোরে তাকে ফতুল্লা মডেল থানার পাগলা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়

গ্রেপ্তারকৃত মো. রুবেল নোয়াখালী জেলার সূবর্ণচরের চরলক্ষ্মী গ্রামের শাহজাহানের পুত্র। তবে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনাটি রহস্যজনক বলে মনে করছেন এলাকার লোকজন।

গ্রেপ্তারের পর তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

এর আগে কিশোরী বাদী হয়ে ধর্ষণের চেস্টার অভিযোগে এনে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, কিশোরী মেয়েটি (বাদী) জন্মের ১ বছর পর তার বাবা- মায়ের ডিভোর্স হয়। তখন থেকে বাদী নোয়াখালী জেলার সূবর্নচরের আক্তার মির হাটে অবস্থিত তার নানা- নানীর বাসায় তাদের সাথে বসবাস করে আসছিলো।

অপরদিকে ফিরোজা বেগম এক নারীকে বাদীর বাবা গ্রেপ্তারকৃত মোঃ রুবেল বিয়ে করে ফতুল্লা মডেল থানার পাগলা চিতাশাল এলাকার সামছুল হকের বাড়ীর ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছিলো।

গত এপ্রিল মাসে গ্রেপ্তারকৃত রুবেল নানা-নানীর বাড়ী থেকে পাগলাস্থ নিজ বাড়ীতে নিয়ে আসে ভুক্তভোগী কিশোরী মেয়েকে। চলতি মাসের ৪ তারিখ সকাল আটটার দিকে ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা ও সৎ মা নিজ নিজ কাজে চলে যায়।

দুপুর ২ টার দিকে বাবা বাসায় খেতে আসে। বিকেল চারটার দিকে দরজা বন্ধ করে দিয়ে কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণের উদ্দেশ্যে তাকে জোরপূর্বক খাটে ফেলে দিয়ে পরিধেয় বস্ত্র খুলে ফেলে স্পর্শকাতর স্থানে হাত বুলায় বাবা।

এ সময় কিশোরী সজোড়ে ধাক্কা মেরে মাটিতে ফেলে দিয়ে ঘরের দরজা খুলে বাইরে গিয়ে চিৎকার করে তার সৎমায়ের বোন সুমি (২৩) খালার নিকট আশ্রয় নিয়ে সকল ঘটনা খুলে বলে। পরে তার সহোযোগিতায় ভুক্তভোগী কিশোরী মেয়ে নোয়াখালী গ্রামের বাড়ীতে চলে গিয়ে আত্নীয়-স্বজনদের অবগত করে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নূরে আযম মিয়া (পি.পি.এম) জানান, ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন...


© 2022 Sangbadnarayanganj.com - All rights reserved
Design & Developed by POPULAR HOST BD