রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন

কুতুবপুরে যুবককে আটক করে জোরপূর্বক বিয়ে দিলেন মেয়ের পরিবার

সংবাদ নারায়ণগঞ্জ:- ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের শরীফবাগ এলাকায় এক যুবককে আটক করে জোরপূর্বক বিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

গত সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১১ টার দিকে,শরিফবাগ এলাকার এ ঘটনা ঘটে।

 

এদিকে সারাদিন ঘরের মধ্যে ঘরে আটকে রেখে ৫ লক্ষ টাকা কাবিনে জোরপূর্বক মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাহিদ হাসানকে বিয়ে দেওয়া হয় বলে জানা যায়।

 

জাহিদ হাসান নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর মদনপুর এলাকার আলতাফ হোসেনের ছেলে ও মীম (ছদ্মনাম) পাগলা শরীফবাগ এলাকার কাইয়ুমের মেয়ে ও সৌদি প্রবাসী মোহাম্মদ হিরার স্ত্রী।

 

এলাকাবাসীর সূত্রে জানা যায়- হিরা দম্পতির ছয় বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। হীরা ভাগ্য বদলের চেষ্টায় সৌদি প্রবাসী হয়েছেন প্রায় তিন বছর। এরই মধ্যে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন তার স্ত্রী।

 

সোমবার রাতে বাড়ি খালি রয়েছে বলে পরক্রিয়া প্রেমিক জাহিদ হাসানকে জানান মীম। পরকীয়া প্রেমিকার ডাকে তার নিজ বাড়িতে এসে স্থানীয়দের হাতে আটক হন জাহিদ হাসান।পরে জাহিদ হাসানের পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশকে অবগত করলে ডিউটিরত পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর মোঃ বাপ্পি ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করার জন্য রেখে আসেন।

 

দীর্ঘ ২৪ ঘন্টা আটক ও মারধর করে পাঁচ লক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য করে স্থানীয় কাজী মাহবুবুর রহমানের মাধ্যমে বিয়ে পড়ান। প্রবাসী হীরার সাথে মীমের ডিভোর্স হয়েছে কিনা এ বিষয়ে কাজী মাহবুবুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান। আজই মীম ও তার স্বামীর তালাক সম্পন্ন হয়েছে। তবে স্বামী প্রবাসে সাথে সাথে তালাক দিয়ে আবারো বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়া যায় এর কোন সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি।

 

এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানান ওই নারী তার বাড়িতে কোন কেউ থাকবে না এমন সময় পরকীয়া প্রেমিককে বাড়িতে ডেকে এনে বিয়ে করবেন এমনটাই তার ইচ্ছে ছিল।

 

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল মিয়া জানান আমি ঘটনাটি লোক মুখে শুনেছি প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে তার পরকীয়া প্রেমককে সহ আটক করেছে স্থানীয় ছেলে পেলেরা।পরে নাকি ১৫ লক্ষ টাকায় দেনমোহর নির্ধারণ করার কথা উত্থাপন করা হলে ৫ লক্ষ টাকা দেনমোহরে বিয়ে পড়ানো হয়েছে।

 

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) বাপ্পী সরদার কে তার মুঠো ফোনে একাধিকবার ফোন কল করলেও তিনি ফোন কলটি রিসিভ করেননি।

 

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ নূরে আযম মিয়ার কাছে জানতে চাইলে,বিষয়টি জানা নেই বলে তিনি জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন...


© 2022 Sangbadnarayanganj.com - All rights reserved
Design & Developed by POPULAR HOST BD